এসএসসির ফলাফল প্রকাশ হলেও যে দুঃসংবাদ পেল পরীক্ষার্থীরা

এসএসসির ফলাফল প্রকাশ হলেও যে দুঃসংবাদ পেল পরীক্ষার্থীরা:- এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় গত বারের চেয়ে এবার পাসের হার কমেছে। এবার গড় পাসের হার ৭৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ। গতবার পাসের হার ছিল ৮০ দশমিক ৩৫ শতাংশ।

সেই হিসাবে এবার পাসের হার ২ দশমিক ৫৮ শতাংশ পয়েন্ট কমেছে। তবে এবার গতবারের চেয়ে জিপিএ ৫ বেড়েছে। এবার মোট জিপিএ ৫ পেয়েছে ১ লাখ ১০ হাজার ৬২৯ জন শিক্ষার্থী। গতবার পেয়েছিল ১ লাখ চার হাজার ৭৬১ জন। এবার পূর্ণাঙ্গ জিপিএ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েছে ৫ হাজার ৮৬৮ জন।

 

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বিভিন্ন শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানদের সঙ্গে নিয়ে রোববার সকালে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ফলাফলের এই অনুলিপি হস্তান্তর করেন।

বেলা ১টায় সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এবারের ফলাফলের বিভিন্ন দিক তুলে ধরবেন শিক্ষামন্ত্রী। দুপুর ২টা থেকে শিক্ষার্থীরা ফল জানতে পারবে। গত ১ থেকে ২৫ ফেব্রুয়ারি এবারের এসএসসির তত্ত্বীয় এবং ২৬ ফেব্রুয়ারি থেকে ৪ মার্চ ব্যবহারিক পরীক্ষা হয়।

শিক্ষামন্ত্রী জানান, এবার ১০ বোর্ডে মোট পরীক্ষার্থী ছিল ২০ লাখ ২৬ হাজার ৫৭৪ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ১৫ লাখ ৭৬ হাজার ১০৪ জন। এবার মোট ২৮ হাজার ৫৫৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। এর মধ্যে এক হাজার ৫৭৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শত ভাগ শিক্ষার্থী পাস করেছে।

তিনি জানান, আটটি সাধারণ বোর্ডের অধীনে এবার এসএসসিতে ৭৯ দশমিক ৪০ শতাংশ, মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে দাখিলে ৭০ দশমিক ৮৯ শতাংশ এবং কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ৭১ দশমিক ৯৬ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছে।

Read also:

যে ১০ লক্ষণ দেখে বুঝবেন আপনার হার্টের সমস্যা আছে

শরীরের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অংশ আমাদের হৃদযন্ত্র। যতদিন হৃদপিণ্ড সচল আছে ততদিন আমরাও সুস্থ আছি। কিন্তু হৃদযন্ত্রের সমস্যা হলেই বিপদ। তাই সমসময় চেষ্টা করুন হৃদপিন্ডকে সুস্থ ও স্বাভাবিক রাখতে। আজকালকার দিনে হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়া বা হৃৎযন্ত্রের সমস্যা আগের চেয়ে অনেক বেড়ে গিয়েছে।

তার কারণ যেমন জীবনধারা, দুশ্চিন্তা, উত্তেজনা তেমনই হৃদযন্ত্রের সমস্যার লক্ষণগুলি এড়িয়ে যাওয়া। বিভিন্ন সমীক্ষায় ধরা পড়েছে পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের মধ্যে হার্ট অ্যাটাকের প্রবণতা এবং হৃদরোগের সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি। মহিলাদের তাই বেশি করে নিজেদের শরীরের যত্ন নেওয়া উচিত। তাহলে আসুন ঝটপট দেখে নিই কোন কোন লক্ষণগুলি দেখলে আপনি বুঝবেন আপনার হৃদযন্ত্র সমস্যায় রয়েছে।

ক্লান্তি : খুব একটা খাটুনি না গেলেও আপনি কী ক্লান্তি অনুভব করেন? যদি দিনের বেশিরভাগ সময়ে নিজেকে ক্লান্ত বলে মনে হয় তাহলে বুঝবেন আপনার হৃদযন্ত্রের সমস্যা হচ্ছে। তাই যদি অযথাই ক্লান্ত বোধ করেন সময় নষ্ট না করে চিকিতসকের পরামর্শ নিন।

হাত-পা ফুলে যাওয়া : পা বা হাত মাঝে মধ্যেই ফুলে যাচ্ছে? এটাও কিন্তু হৃদপিণ্ডের সমস্যার একটা লক্ষণ। হৃদপিন্ডের সাহায্যে স্বাভাবিক রক্তচালনায় বাধা পায় তাহলে তা ধমণীর মধ্যে জমতে থাকে এবং শরীরকে ফুলিয়ে দেয়। আবার যদি রক্ত চলাচল স্বাভাবিক হয় তাহলে ফোলা ভাবটা কমে যায়।

বুকে ব্যাথা : হৃদযন্ত্রের সমস্যার সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে বুকের বাঁদিকে মাঝে মাঝেই ব্যথা হওয়া। অনেকে আছেন বুকে ব্যথা হলে গ্যাস অম্বলের থেকে এই ব্যথা হয়েছে বলে বিষয়টা অদেখা করে দেন। ফলে সমস্য়া আরও বাড়ে। বারবার এভাবে বুকে ব্যথা হলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিন, এবং ইসিজি করিয়ে দেখে নিন হৃদযন্ত্রের কোনও সমস্যা নেই তো।

শ্বাসকষ্ট : শ্বাসকষ্ট হচ্ছে হার্টের সমস্যার আর একটি গুরুত্বপূর্ণ লক্ষণ যা অনেকসময়ই মহিলারা এড়িয়ে যান। এর কারণ হতে পারে হৃদযন্ত্র সঠিকভাবে কাজ করছে না ফলে শরীরে অক্সিজেনের অভাব হচ্ছে শরীরে। তাই সময় নষ্ট না করে আজই চিকিতসকের পরামর্শ নিন।

তন্দ্রাচ্ছন্ন ভাব : ভালমতো ঘুম হওয়া সত্ত্বেও কোনও কারণ ছাড়াই আপনার যদি সারাক্ষণ ঘুম ঘুম পায় তাহলে বুঝবেন হৃদযন্ত্রে সমস্যা হচ্ছে। ডাক্তারের ক্লিনিক যাওয়ার আপনার সময় এসে গিয়েছে।

হজমের সমস্যা : হার্টের একাধিক সমস্যা থাকলে হজমের সমস্যা দেখা যায়। হাজারো টোটকা, বা ওযুধেও যদি সমস্যা না কমে তাহলে বুঝবেন হৃদপিণ্ড স্বাভাবিক রক্তচলাচলে বাধা দিচ্ছে, আর তাই হজমের সমস্যা হচ্ছে।

বেশিক্ষণ হাঁটতে না পারা : ৫ মিনিট হাঁটলেই কী আপনি ক্লান্ত হয়ে যান? শারীরিক কোনও কসরত করতে গেলেই মনে হয় এনার্জি শেষ? পায়ের শিরায় টান ধরে? এই সব লক্ষণই কিন্তু হৃদযন্ত্রের সমস্যার দিকে ইশারা করছে।

অনিয়মিত হৃদস্পন্দন : অনিয়মিত হৃদস্পন্দন হতে পারে হৃদপিণ্ডের সমস্যা থেকে। সময় থাকতেই চিকিতসকের পরামর্শ নিন ও চিকিতসা শুরু করান।

অতিরিক্ত ঘাম : যদি পাখার তলায় বসে থাকা সত্ত্বেও ঘামে ভিজে যান তাহলে বুঝবেন হৃদযন্ত্রে নজর দেওয়ার সময় এসেছে। অতিরিক্ত ঘাম হলে শরীর থেকে নুন ও জল বেরিয়ে যেতে থাকে, ফলে ক্লান্তি ও শরীর ডিহাইড্রেট হয়ে যায়।

About the Author

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>